Total Pageviews

Monday, December 24, 2018

The Waste Land- The Fire Sermon - Bengali translation, Word meaning, Synopsis - দ্যা ওয়েস্ট ল্যান্ড-দ্যা ফায়ার সারমন - বাংলা অনুবাদ, শব্দার্থ, টিকা ও সারাংশ

the waste land- the fire sermon bengali translate summary


অন্যান্য লিঙ্ক সমূহঃ 
৩। টি এস এলিয়টের জীবন ও কর্ম 
The Waste Land- The Fire Sermon - Bengali translate, Word meaning, Synopsis - দ্যা ওয়েস্ট ল্যান্ড-দ্যা ফায়ার সারমন - বাংলা অনুবাদ, শব্দার্থ, টিকা ও সারাংশ

দ্যা ফায়ার সারমন
The Fire Sermon
বঙ্গানুবাদ
নদীটির নীড় ভেঙে গেছে, পাতাদের শেষ কটা আঙুল
খামছে ধরে আছে ভেজা তীরটি। উদাসী বাতাস
এড়িয়ে যায় বাদামি বধির তীর। জলপরীরা অপসৃত।
মিষ্টি টেমস মৃদুলয়ে বয়ে যায়, আমার গানের শেষাবধি।
বর্জ্য-বোতল, স্যান্ডউইচ মোড়ক ভাসে না,
রেশমি রুমাল, ঠোঙা সিগারেটের টুকরোও দেখা যায় না
গ্রীষ্ম-রাতের উদ্দামতার সাক্ষ্যহীন। জলপরীরা সব নিয়েছে বিদায়।
ভবঘুরেরা, তাদের বন্ধুরা শহুরে সব মাস্তান
বিদায় নিয়েছে, রাখেনি ঠিকানার সন্ধান।
ব্যাবীলনীয় লেমান নদীর তীরে বসে কেঁদেছি অঝর.
মিষ্টি টেমস, মৃদুলয়ে বয়ে যায়, আমার গানের শেষ যবে
মিষ্টি টেমস, মৃদুলয়ে বয়ে যায়, বলিনি কিছুই খুব নিচু বা উচু রবে।
শীতল হাওয়ার ঝাপটায় শুনি
হাড়ের খটমট, আকর্ণ বিস্তারী হাসির ধ্বনি
ঝোপের মাঝে ইদুর এক আলতো পায়ে যায় হেঁটে
চটচটে পেটটি তার ঝোপের গায়ে লেপটে
মরা খালে বর্শী ফেলে বসেছিলাম ঠায়
শীতবিকেলে, গ্যাস হাউসের পিছন দিকটায়
ফিশার কিং আর আমার ভাইয়ের মরণ কথা ভেবে
আমার পিতার আগেই রাজার মরণ কথা ভেবে।
উলঙ্গ সব শ্বেত শরীর ভিজে মাটির পরে
হাড়গোড় সব জমা রাখা ছোট্ট আঁধার ঘরে,
তার ওপর ইদুর সব ছুটে ফেরে বছরগুলো গুনি।
পেছনে আমার, মাঝে মধ্যে তারই আওয়াজ শুনি
মোটরগাড়ির হর্ন বাজিয়ে প্রেমিকাকে
সুইনি ডাকে মিসেস পোর্টারকে
চাঁদের আলোয় মিসেস পোর্টার, আহা কী চমৎকার!
পবিত্র হবে বলে,
মা মেয়ে হাত ধুয়ে নেয় এবার সোডার জলে
এবং শিশুদের কলরব ছাদে ধ্বনি তোলে
টুইট, টুইট, টুইট
জাগ জাগ জাগ জাগ জাগ জাগ
কী পাষণ্ড, কি নির্মম
রাজা টেরেউস

মেকি নগরী
আবৃত বাদামি কুয়াশায় শীতের দুপুরে
স্মীয়ার্না বণিক, ইউজেনাইডস
বাসী দাড়ি গালে, আর পকেট ভরা কিশমিশ
কাগজপত্র সব তৈরি তার
অমার্জিত ফরাসিতে নিমন্ত্রণ করল আমায়,
মধ্যাহ্নভোজে, ক্যানন স্ট্রিটের হোটেলে
সপ্তাহান্ত কাটাতে তার সাথে মেট্রোপোলে।
প্রায় অপরাহ্নে, ক্লান্ত চোখ আর পিঠ টেনে
অবসন্ন দেহগুলো টেবিল ছাড়ে; দেহ তো নয়
সব অপেক্ষমাণ ইঞ্জিন,
আমি টাইরেসিয়াস, অন্ধ; দ্বিধা পুরুষ নারীতে
কোঁকড়ানো স্তনের পুরুষ, আমিও দেখতে পাই
বিকেল বেলায় বাঁচা, শেষ সে আলোতে
র্ম-সাগর পাড়ি দিয়ে, ক্লান্তজন ঘরে খোজে ঠাই
টাইপিস্ট মেয়েটি চা খাবার সময়, প্রাতরাশটাও বানিয়ে রাখে, আগুন
জ্বালায় স্টোভে, খাবার দিয়ে যত্ন করে ভরে রাখে টিন।
তার অন্তর্বাস সব জানালায় দেয়া মেলে।
রং মেলানো বিকিনি, ব্রা একটু শুকিয়ে গেলে
ডিভানটাতে স্তুপ করে, ডিভানটাই বিছানা তার একটু টেনে দিলে)
মোজা, চটি কাঁচুলি আরো কত কী!
আমি টাইরেসিয়াস শুকনো স্তনের পুরুষ
দিব্য চোখে দেখেছি দৃশ্য সব, বাকিটুকু অনুমান
অতিথি আপ্যায়নে, ছিলাম অপেক্ষমাণ।
ব্রণমুখো যুবা এক, আসে অবশেষে
এক বাড়ির দালালের ছোটো কর্মচারী, পায়ে দৃপ্ত গতি
নিচু ডিভানটায় বসে আয়েশে
মাথায় দামি হ্যাট যেন ব্র্যাডফোর্ট-কোটিপতি।
সময় হয়েছে এবার, সে অনুমান করে
খাওয়া শেষ, মেয়েটিও বুঝিবা ক্লান্ত
প্রেমোন্মাদনায় মেয়েটিকে সোহাগে জড়ায়
মেয়েটিও তেমন দেয়নি বাধা কারণ সে শ্রান্ত।
উদ্দীপ্ত সে, নিয়ে সিদ্ধান্ত, করে গমন।
প্রসারিত হাত দুটো বাধা পায় না তেমন
পৌরুষের ঔদ্ধত্য তার চায় না প্রতিদান
নিঃসাঢ় পড়ে তাকে জানায় আহবান।
(এবং আমি টাইরেসিয়াস সয়েছি এসব অনেকই)
অভিনীত হয়ে গেল যা এই বিছানায় বা ডিভানে
থিবীসে দেয়ালের পাশে বসেছিলাম একাকী
অনেক ঘুরেছি আমি মৃতদের ভুবনে

উত্তপ্ত এক বিদায় চুম্বন দিয়ে
পথ হাতড়ে চলে যায়, আঁধার সিড়ি বেয়ে...
ফিরে এসে, আপন মনে দেখে আয়না
বিদায়ী প্রেমিকের কথা ভাবে না একবার
মাথায় ঘোরে হালকা একটু ভাবনা :
যা হবার তা হয়ে গেছে, কী আছে হতাশার!
সুন্দরীরা ঘটিয়ে এসব স্থলন
একা ফিরে ঘরে,
মাথার চুলে ভোলা মনে হাত বুলায় তখন
তারপর, রেকর্ড চাপায় গ্রামোফোনের পরে।

সে সুরই কোমল করে ভেসে জলের পরে
গ্র্যান্ড স্ট্রিট ধরে ছড়ায় ভিক্টোরিয়া স্ট্রিটে।
হা নগরীহা নগরী, বিলাপের গুনি আর্তস্বর
গণপানশালার পাশে ভিক্টোরিয়া স্ট্রিটে
ভেতর থেকে ভেসে আসে ম্যান্ডোলিনের বোল
তার সাথে আসে ভেসে উচ্চারণের গোল
জেলেরা সব সেথায় সারে মধ্যাহ্নের ভোজ, পাশেই তার
ম্যাগনাস গির্জা দাড়ায়
গ্রিক স্থাপত্যের উজ্জ্বল শুভ্রতায়।

দূষিত নদীটি ঘামায়,
তেল, আলকাতরায়
বজরাগুলো যায়
স্রোতের দোলনায়
অনেক লাল পাল।
বিশাল বিশাল।
অনুকূল বাতাসে, কাঠ খণ্ড ভাসে
ছলা ছলাৎ বজরা চলে
কাঠখণ্ডের পাশে।
গ্রিনিচে যায় পৌছে
ডগস আইল পিছে ফেলে শেষে

ওইয়ালালা লেইয়া
ওয়ালালা লেইয়া লালা
এলিযাবেথ আর লেইচেস্টার
দাড় টেনে নায়
নায়ের গলুইয়ে
সোনালি কারুকাজ
সোনালি আর লাল
নায়ের দ্রুত গতি
ঢেউ তোলে দুই তীরে
দক্ষিণ-পশ্চিমা বায়
ভাটার টানে যায়
ঘন্টা ধ্বনি আসে
সাদা চুড়া থেকে
ওয়াইওয়া লালা লেইয়া
ওয়াল্লালা লেইয়া লালা

ট্রাম আর ধূলি ধূসর গাছ
হাইবারীতে১০ জন্ম আমার। রিচমন্ড১১ আর কিউ১২
শেষ করল আমায়। রিচমন্ডেই পা তুলেছিলাম
চিৎ হয়ে শুয়ে, নায়ের পাটাতনে।

ম্যুর গেটে পা আমার, আর মনটা
পায়ের তলায়। ঘটলে সে অঘটনটা
কেঁদেছিল সে লোকটা। শপথ নিয়েছিল করব না এ পাপ
বলিনি কথা একটা। কী করব অনুতাপ?
মার্গেট সৈকতে।
পারি জুড়ে দিতে
কিছুইনার সাথে কিছুইনা
নোংরা হাতের ভাঙা নখটা
অসহায় স্বজন আমার কিছুই আশা করে না।

লালা
সন্ত অগাষ্টিন ও কার্থেজ এসেছিলেন
জ্বলছে জ্বলছে জ্বলছে সব জ্বলছে
প্রভু মুক্তি দাও আমায়
মুক্তি দাও
নিবারণ করো এ জ্বলন।

শব্দার্থঃ
rudely - রূভাবে।
currant -শুকানো আঙুর, কিসমিস।
demotic - অমার্জিত, আঞ্চলিক।
throbbing - স্পন্দিত হওয়া।
wrinkled - কোঁকড়ানো।
strive - চেষ্টা করা।
periloushy - বিপজ্জনকভাবে।
combination - সমন্বয়।
divan - বিছানার মতো প্রশস্ত চেয়ার।
slipper - চটিজুতা।
camisoles - কাঁচুলি।
perceive - কল্পনা করা।
carbancular - গাঢ় কালো রংয়ের ব্রণ।
assurance - আশ্বাস ।
propitious - সন্তোষজনক।
caresses - আলিঙ্গন।
assault - আঘাত করা।
exploring - অনুসন্ধানী।
encounter - মোকাবেলা করা।
defence - আত্মরক্ষা।
vanity - অহমিকা।
indifference - ঔদাসীন্য ।
grope - হাতড়ানো।
stoop - নত হওয়া।
folly - ক্রটি।
whining - গোঙানো।
mandoline - বাদ্য যন্ত্র।
clatter - জোর শব্দ করা।
chatter - আবোলতাবোল বলা ।
lounge - বিশ্রাম নেয়ার জায়গা
sweats - ঘামায়।
drift - ঢেউয়ের বা স্রোতের টানে চলা।
oar - দাড়।
gilded - সোনার কারুকাজ করা।
brisk - ত্রস্ত ।
Rippled - ছোটো ছোটো ঢেউ তোলা।
Peal - উচ্চধ্বনি।
supine - চিৎ হয়ে শোয়া।
canoe - সাম্পানের মতো ছোটো নৌকা ।
Fortnight - একপক্ষ বা পনেরো দিন।
gull - গাংচিল।
swell - ফুলে ওঠা।
whirlpool - জল বা বাতাসের ঘূর্ণিপাক।
gentile - নাস্তিক।

ব্যাখ্যা ও টিকাসমূহঃ
১. ব্যাবীলনীয় লেমান- দেশান্তরিত হিব্রুদের দেশে ফিরে যাবার জন্য বিলাপ।
২. হাসির ধ্বনি- চারধারের সব জীবন্ত মানুষ
৩. ফিশার কিং- পুনর্জন্মের প্রতীক।
. আমার ভাইয়ের - শেক্সপিয়রের টেমপেস্ট নাটকে ফার্ডিনান্ডের বিলাপ ।
৫. মিসেস পোর্টার- ভাড়াটে শয্যা সঙ্গিনী।
৬. টেরেউস- ফিলেমেলার ধর্ষক রাজা টেরেউস।
৭. গ্রিনিচ - টেমস নদীর দক্ষিণ তীর।
৮. ডগস আইল- গ্রিনিচের বিপরীত তীর।
৯. এলিযাবেথ- রানি এলিজাবেথ ও তার প্রেমিক লেইচেস্টার।
১০. হাইবারী- লন্ডন শহরের উত্তর উপকণ্ঠের এলাকা।
১১. রিচমন্ড- টেমস নদীর তীরে দুটি পিকনিক স্পট।
১২. কিউই।
. সন্ত অগাষ্টিন ... এসেছিলেন - সন্ত অগাষ্টিনের স্বীকারোক্তিতে তিনি কার্থেজ নগরীতে
এসেছিলেন বলে উল্লেখ করেছেন এবং কার্থেজে দেখেছিলেন অপবিত্র প্রেমের পাপাগ্নি।


সারাংশঃ
কবিতাটির এই অংশে টেমস নদীকে রূপক ধরে বর্তমান পৃথিবীর নৈতিক ধস, যৌনাচারকে চিত্রিত করা হয়েছে বিভিন্ন রূপকে, উদ্ধৃতিতে। টেমস একদা নিষ্পাপ ছিল পৃথিবীর মতোই। আজ টেমস দূষিত, পৃথিবী পাপসিক্ত, দেহ সর্বস্ব যান্ত্রিক যৌনাচারে দূষিত। এ বক্তব্যটিই এলিয়টিয় ঢংয়ে বিভিন্ন উপাখ্যান, সাহিত্যকর্ম থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে বুঝানো হয়েছে।


No comments:

Post a Comment

Popular Posts