Total Pageviews

Saturday, July 21, 2018

The Glass Menagerie – Tennessee Williams - Bangla Summary and Characters - দ্যা গ্লাস মেনাজেরি – টেনেসিউইলিয়ামস

The Glass Menagerie – Tennessee Williams - Bangla Summary and Characters - দ্যা গ্লাস মেনাজেরি – টেনেসিউইলিয়ামস 


দ্যা গ্লাস মেনাজেরি The Glass Menagerie
১। আমান্ডা উইংফিল্ড টম ও লরার মা।
২। টম উইংফিল্ড
৩। লরা উইংফিল্ড
৪। জিম ও'কনর যাকে লরার জন্যে টম পসন্দ করে।
৫। মিঃ উইংফিল্ড টম ও লরার বাবা।


ঘটনাপ্রবাহঃ
The Glass Menagerie হল একটি স্মৃতিনাট্ট।  এর ঘটনাপ্রবাহ টম উইংফিল্ড নামের যে বর্ণনাকারী চরিত্র রয়েছে তার স্মৃতি থেকে বর্ণনা করা করেছে।  আর সেটিংস হিসেবে বেছে নেয়া হয়েছে ১৯৩৭ সালের সেইন্ট লুইস নামক স্থান। টম উইংফিল্ড একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষী কবি আর সে একটি জুতার কারখানায় কাজ করে।  তার সাথে তার মা আমান্ডা আর ছোট বোন লরা থাকে।  তার বাবা মি. উইংফিল্ড অনেক আগেই তাদের ছেড়ে চলে গেছেন, কিন্তু কোন দিন কোন খবর নেন নাইএমনকি একটা চিঠিও না।
মিসেস উইংফিল্ড তথা আমান্ডা উইংফিল্ড ছিলেন একজন ভদ্র দক্ষিনী পরিবারের মেয়েযিনি তার বাচ্চাদের আনন্দ দেয়ার জন্যে তার আড়ম্বরপূর্ণ যৌবনকালের কাহিনী শুনাতেন। আরো শোনাতেন সেই সমস্ত যুবকদের গল্প যারা তাকে পাওয়ার জন্যে কত কিছুই না করতো। কিন্তু তিনি তার নিজের মেয়ে লরার ব্যাপারে মানসিকভাবে খুব অশান্তিতে আছেন। কারন মেয়েটি একেবারে লাজুক আবার এক পা খাটো যা কোন ভদ্র যুবককেই আকর্ষন করে না। আমান্ডা লরাকে একটি বিজনেস কলেজ এ ভর্তি করিয়ে দিলেন। তিনি আশা করেছিলেন, পড়াশুনা করে সে হয়তো, একটি ভাল ব্যাবসায়িক ক্যারিয়ার গড়ে তুলবে আর তাদের পরিবারের আয়ের মাধ্যম হবে।  সপ্তাহখানেক পড়ে তিনি লক্ষ্য করলেনলরা তার লাজুকতার কারনে গোপনে তার ক্লাস ফাকি দিচ্ছে আর শহরে একা একাই ঘুরে ফিরে দিনগুলো পার করছে।
আমান্ডা তখন লরার জন্যে বিবাহ ছাড়া আর কোন আশা দেখলেন না আর তার জন্যে ম্যাগাজিন বিক্রি শুরু করলেন যাতে করে কিছু অতিরিক্ত টাকা আসে এবং তিনি এটাও বিশ্বাস করতেন, এতে করে তার মেয়ের জন্যে ভাল পাত্র খুজে পাবেন। এদিকে টম যে কিনা মদসিনেমা আর সাহিত্যের মাঝে মুক্তি খুজে নিতো কারন সে  তার কারখানার চাকরি খুব অপসন্দ করতো।  লরার কাচের তৈরী কিছু প্রাণীর সংগ্রহশালা ছিল। কোন একদিন মায়ের সাথে ঝগড়ার সময় টম কয়েকটি কাচের তৈরী প্রানী ভেঙ্গে ফেলে।
আমান্ডা এবং টম লরার বর্তমান অবস্থা নিয়ে আলোচনা করে এবং আমান্ডা টমকে লরার জন্যে একটি ভাল পাত্রের খোজে চোখ কান খোলা রাখতে বলে। জিম ও' কনর কে টমের পসন্দ হয় কারন তার সাথে তার অনেক পুরোনো বন্ধুত্ব।  আমান্ডা জিমের ব্যাপারে টমের কাছে জানতে চায় আর টম যখন বলে সে তার ক্যারিয়ারকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তখন সে খুব খুশি হয়।  যেদিন রাত এ টম তার বন্ধু জিম কে দাওয়াত দেয়, সেদিন আমান্ডা ভাল ভাল খাবার রান্না করে এবং লরাকে ভাল কাপড় পড়তে বাধ্য করে।  একেবারে শেষ সময়ে লরা জানতে পারে সেদিনের মেহমান সম্পর্কে।  সে খুব খুশি হয় কারন হাইস্কুল এ থাকা অবস্থায়ই সে তার প্রেমে পড়ে ছিল।  যখন  জিম বাসায় আসে  লরা দরজা খুলে দেয় কারন আমান্ডা তাকে এটা করতে আদেশ করেছিলেন। কিন্তু অত্যধিক লজ্জাশীলতার কারনে সে খুলে দিয়েই চলে যায়।  টম আর জিম গল্প করা শুরু করে। টম জিমকে বলে সে তার আয়ের টাকা তার বাসায় বৈদ্যুতিক বিল দেয়ার জন্যে খরচ করে।  সে তার চাকরি ছেড়ে দিয়ে এখন একটা সামুদ্রিক ব্যাবসায়ী জাহাজে যোগ দেয়ার কথা ভাবছে। লরা অসুস্থতার ভান করে তাদের সাথে রাতের খাবার খেতে এলো না। আমান্ডা তার পুরোনো দিনের একটা জাকালো পোষাক পড়েছে। জিমের সাথে সে কথা বলছিল খুব আনন্দের সাথে যেন কতদিন ধরে তারা পরিচিত। 
খাওয়া শেষ হতেই তাদের ঘরের বাতি নিভে গেল কারন তাদের বৈদ্যুতিক বিল পরিশোধ করা হয় নাই। মোমবাতি জালানো হল আর আমান্ডা লরাকে বলল জিমকে আনন্দ দিতে কারন তারা এই সুযোগে পরিষ্কার হয়ে নিতে চান। লরা জিমের উপস্থিতিতে প্রথমে কিছুটা পক্ষাঘাতগ্রস্থের মত আচড়ন করে কিন্তু জিমের উষ্ণ ও খোলামেলা ব্যাবহারে সে নিজেকে তার খোলস থেকে বের করে নিয়ে আসে। লরা জিমের কাছে স্বীকার করে হাইস্কুলে থাকা অবস্থায়ই সে তাকে পসন্দ করে ফেলে কিন্তু লজ্জায় তাকে বলতে পারে নাই। তারা কথা চালিয়ে যায়, জিম লরাকে নীল গোলাপ নাম দিয়েছিল,  সে জিমকে তা স্মরণ করিয়ে দেয়। তার লজ্জাশীলতার জন্যে জীম তাকে কিছুটা ভতসনা করেতবে তার অনন্যতার প্রশংসা করে। তখন লরা তার কাচের প্রাণীগুলোর সংগ্রহশালা দেখায়, বিশেষ করে ইউনিকর্ন টি।  এর পরে জিম তার সাথে নাচেএসময় দুর্ঘটনাবশত তার হাতের টোকায় সেটির শিং ভেংগে যায়। লরা তাকে ক্ষমা করে দেয় আর ইউনিকর্ন টি এ খন একটি সাধারন ঘোড়ায় পরিণত হয়। জিম তখন তাকে চুমু খায়, কিছুক্ষনের মাঝেই সে নিজেকে সামলে নেয়, এবং ক্ষমা চায়  আর বলে তাকে এখনি চলে যেতে হবে কারন তার একজন মেয়ে বান্ধবী আছে।  লরা তাকে ভাংগা ইউনিকর্ন টি সাধে স্মারক হিসেবে।
আমান্ডা খুবি আনন্দের সাথে বসার ঘরে প্রবেশ করে।  জীম তাড়াহুড়ো করে বলে তাকে এখনি যেতে হবে কারন তার বাগদত্তার সাথে তার দেখা করার কথা।  আমান্ডা তাকে খুব উষ্ণতার সাথেই বিদায় জানায়। কিন্তু জিম চলে যেতেই আমান্ডা  টমকে দোষারোপ করা শুরু করে।  টম তাদের কে বলে তার চাকরি চলে গিয়েছে।  সে তখন তাদের কে ছেড়ে চলে আসে।  এক বছর ভ্রমনের পর সে দেখে তার মাঝে খুব অপরাধবোধ কাজ করছে এবং সে স্মৃতি ভুলতে পারছে না।

2 comments:

  1. এখানে লেখায় Tennessee বানান টা ভুল আছে!(n ২টা হবে) you should correct it, please.

    ReplyDelete

Blog Archive