Search This Blog

Total Pageviews

Friday, January 4, 2019

King Oedipus- Bangla translation - part -2 - রাজা ঈডিপাস বাংলা অনুবাদ পর্ব -২

Oedipus and sphinx

King Oedipus- Bangla translation - part -2 - রাজা ঈডিপাস বাংলা অনুবাদ পর্ব -২

প্রথম পর্ব থেকে শুরু করুন 

ঈডিপাস : কী সেই নোংরা ব্যাপার? আর এটা থেকে পরিচ্ছন্ন রাখব কী করে আমাদের রাজ্যটাকে।
ক্রেয়ন : একজনকে নির্বাসন দণ্ড দিয়ে কিংবা তাকে হত্যা করে কারণ অন্যায় হত্যাযজ্ঞই এ রাজ্যে ভয়ানক বিপদ হয়ে এসেছে।
ঈডিপাস : সে মানুষটা কে? যার হত্যার কারণে এ রাজ্যে দেখা দিয়েছে ভয়াল অবস্থা?
ক্রেয়ন : আপনার আগে যিনি আমাদের এ রাজ্যের রাজা ছিলেন, তিনি রাজা লায়াস।
ঈডিপাস : আমি তাকে জানতাম, কিন্তু কখনো দেখিনি তাকে।
ক্রেয়ন : তিনি নিহত হয়েছিলেন, দেবতা পরিষ্কার ভাষায় নির্দেশ প্রদান করেছেন তার হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণ করার জন্য।
ঈডিপাস : কিন্তু তাকে কোথায় খুঁজে পাওয়া যাবে। সেই পুরনো দিনের হত্যাকারীকে কোথায় খুঁজে পাব?
ক্রেয়ন : দেবতা বলেছেন, সে এ রাজ্যেই আছে। সতর্কতা সহকারে খোঁজ নিলে সবকিছুরই সন্ধান মেলে। শুধু একটু অসতর্ক হলেই সে পালায়।
ঈডিপাস : তিনি কি প্রাসাদেই নিহত হয়েছেন, কিংবা যুদ্ধ ক্ষেত্রে অথবা দূরবর্তী কোন স্থানে রাজা লায়াস অপঘাতে নিহত হয়েছেন?
ক্রেয়ন : রাজা একদা রাজ্য হতে ডেলফির উদ্দেশে যাত্রা করেন, এরপর আর ফিরে আসেননি।
ঈডিপাস : তার সহযাত্রীদের সম্পর্কে কি কিছু জানা যায় না, যে তার নিহত হওয়ার বিষয়টি নিজ চক্ষে দেখেছে, তার কাছ থেকে জানা যাবে পুরো ঘটনা?
ক্রেয়ন : তার সহযাত্রীদের মধ্যে একজন ছাড়া আর সবাই নিহত হয়েছিল, আর জীবিত সে ব্যক্তি ভয়ে পালাতে বাধ্য হয়। তার কাছ থেকে সবই জানা যেত।
ঈডিপাস : কেউ তার কোন সংবাদ দিতে পারলেই তার কাছ থেকে পুরো বিষয়টা জানা যাবে।
ক্রেয়ন : সে বলেছিল, দস্যুরা হঠাৎ রাজাকে পাকড়াও করে একজন নয়, দলবেঁধে সবাই রাজার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।
ঈডিপাস : কিন্তু এ রাজ্যের যেকোন একজন রাজার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা না করলে কোন দস্যুদল এমন কর্ম করতে সাহসী হত না।
ক্রেয়ন : আমরাও সেটাই ভেবেছিলাম, কিন্তু ক্রমে রাজা লায়াসের হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণের বিষয়টি ভুলে যাই আমরা।
ঈডিপাস : রাজা নিহত হওয়ার পর তোমরা এ বিষয়টার কোন খোজখবর করনি কেন?
ক্রেয়ন : স্ফিঙ্কস তার প্রহেলিকা[ধাঁধাঁ] সহকারে আমাদের বলেছিল, রাজার মৃত্যু অজানা থাকুক, আগামী দিনের কথা চিন্তা করো।
ঈডিপাস : আমি নতুন করে এটার অনুসন্ধান চালাব, পুরো বিষয়টা আলোতে নিয়ে আসব। দেবতা ফিবাস যথার্থই বলেছেন, মৃত রাজার জন্য আমরা সঠিক ভূমিকাটাই পালন করব। এবার আমি তোমাদের সাথে নিয়ে এ রাজ্যের ভূতপূর্ব রাজার হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ গ্রহণে সচেষ্ট হব। শুধু মৃত বন্ধুর স্বার্থে নয়, আমার নিজের কারণেও সে হত্যাকারীকে খুঁজে বার করতে হবে। দূর করতে হবে এ কলঙ্কভার। হত্যাকারী যে-ই হোক না কেন, সে যখন রাজা লায়াসকে হত্যা করেছে, সে আমাকে হত্যা করতেও দ্বিধা করবে না। অতএব, যদি রাজা লায়াসের হত্যার প্রতিশোধ নিতে পারি তাহলে সেটা আমার জন্যও মঙ্গলকর। এবার আমার সন্তনেরা সবাই যার যার স্থানে বসে পড়ো, আর এই বৃক্ষশাখাগুলো হাতে তুলে নাও। ক্যাডমাস গোত্রের সব লোকদের এখানে হাজির হতে বলো। আমি সবাইকে খতিয়ে দেখতে চাই। দেবতার নির্দেশে হয় আমরা সার্থক হব না হয় ব্যর্থ হব। [ঈডিপাস প্রাসাদের ভেতরে চলে গেলেন। একজন সংবাদবাহক লোকজনদের খবর দিতে গেল। পুরোহিত প্রার্থনাকারীদের উঠার নির্দেশ দিলেন।]
পুরোহিত : এবার ওঠো ভক্তবৃন্দ। আমরা রাজার কাছে এসেছিলাম এ বিষয়ে তিনি কি বলেন তা শোনার জন্য। তিনি আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন, চলো, এবার আমরা প্রার্থনা জানাই দেবতা ফিবাসের কাছে তিনি যেন আমাদেরকে এই ঘোর দুর্দিন হতে রক্ষা করেন। [প্রার্থনাকারীরা সবাই একে একে সরে পড়ল]
[থীবিয়ান প্রবীন কোরাস দলের প্রবেশ]
কোরাস : ও থেবস, আলোর শহর, আলোকিত পিথিয়ান স্বর্ণনগরী হতে হে স্বগীয় বাণী শোনা যাচ্ছে।  প্রচণ্ড ভীতিতে বিদীর্ণ হচ্ছে আমার অন্তর। তোমার ক্ষোভকে দমিত করার জন্য সকরুণ আর্তনাদ চৌচির করছে আকাশ বাতাস। কী ভাবে উদ্ধার করবে আমাদের, কবে ঘটবে তা ওহে আগামী দিনের উজ্জ্বল আশার কন্যা বলো দেখি ওহে অমর দেবী অ্যাথিনীদেবরাজ জিউস তনয়া তোমারই শরণ নিচ্ছি, প্রথমে ধনুর্বাণ ধারী দেবতা ফিবাস আর তোমার বোন আমাদের রাজ্যের রক্ষাকর্ত্রী দেবী আর্টেমিসের শরণ নিচ্ছি আমি। ফের তোমাদের ত্রয়ী শক্তির প্রকাশ ঘটাও। আমাদের নগরী পানে ধেয়ে আসা মৃত্যুর গতিকে ফেরাওআমাদের রাজ্যে মহামারী পাঠিয়ে রাজাকে ঠেলে দিচছ পতনের মুখে, তাকে রোধ করার জন্য তুমি মূর্তি ধরে হাজির হও দুঃখ বেদনায় জর্জরিত মোরা, ভয়াল ব্যধি সবকিছুকে অতিক্রম করেছে। এর থেকে উদ্ধারের কোন পথ খুঁজে পাচ্ছি না মোরা। জমিতে ফলছে না ফসল, প্রসব বেদনায় কাতর রমণী প্রসব করতে পারছে না সস্তান, একে একে সব প্রাণবায়ু উড়ে যাচ্ছে মৃত্যুলোকে। এত যে মৃত্যু গুনে শেষ করা যায় না, শূন্য হয়ে যাচ্ছে নগরী। মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করবে এমন কোন মানুষ নেই, মৃতদেহগুলো সৎকারেরও কোন লোক নেই। চারপাশে মৃতদেহ জমে জমে ছড়াচ্ছে ভয়াল ব্যাধি। হাজারো বিধবা আর বৃদ্ধা মাতার বিলাপের সাথে প্রতিকারের অনুনয় বিনয় মিলে ভারী করে তুলেছে আকাশ বাতাস। সোনালি দেবী আর্টেমিস আমাদের আর্তনাদ শুনে মোদের সামনে এসে দাড়াও। অ্যাপোলো, আমাদের প্রার্থনা শোনো, আরোগ্যের পথ বাতলাও। মৃত্যুদেবতার যে ভয়াল শক্তি তাদের অগ্নিসম তেজ দ্বারা আমাদের পুড়িয়ে ছাই করছে, সমুদ্রপাড়ের শীতল হাওয়া দ্বারা তাদের তাড়াও অথবা তাদের ডুবিয়ে দাও সাগরে। হে দেবরাজ জিউস, আজকে রাতে না হলেও আগামী কাল দিনের আলোকে এটা সম্পন্ন কর। তোমার বজ্রের আড়ালে রাখা অগ্নিফুলিঙ্গ সম বিদ্যুৎ শিখা দ্বারা মৃত্যু দেবতার ভয়াল শক্তিগুলোকে বিনষ্ট করে দাও।
ওহে, লাইসিয়া রাজ, তোমার ধনুক হতে ছুটে যাওয়া তীর যেন বিফলে না যায়, সেটা যেন আমাদের শক্রকে ধ্বংস করে। দেবী আর্টেমিসের অগ্নিবাণগুলোও যেন লাইসিয়ার পর্বত ভেদ করে ছুটে আসে। আমাদের রাজ্যের নামে যার নাম সেই দেবতা বাকাসকেও আবাহন করছি, মীনাডের সখা যিনি। তার কাছে প্রার্থনা মোর, তিনি যেন তার হাতের মশাল নিয়ে মোদের শক্র মৃত্যু দেবতার বিরুদ্ধে যুদ্ধে নামেন। 

পরের পর্বে যান। 


No comments:

Post a Comment

Popular Posts