Total Pageviews

Wednesday, February 26, 2020

Jane Austen - Life and works - Bangla

Jane Austen - Life and works - Bangla

Jane Austen - Life and works - Bangla
Jane Austen ইংল্যান্ডের হ্যাম্পশায়ারের [Hampshire] স্টিভেনটন রেকটরিতে [Steventon Rectory]  ১৭৭৫ খ্রিস্টাব্দের ১৬ই ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। তিনি রেভারেন্ড জর্জ অস্টেন [ George Austen ] ক্যাসান্ড্রা লেই-[Cassandra Leigh] এর আট সন্তানের মাঝে সপ্তম। তার আরো ছয় ভাই এক বোন ছিল। এই বোনের নাম ক্যাসান্ড্রা [Cassandra] সে বয়সে জেন অস্টেনের দুবছরের বড়ো ছিল। দুজনের মাঝে বেশ অন্তরঙ্গ সম্পর্ক ছিল। জেনের পিতা পেশায় যাজক ছিলেন। সাংসারিক খরচ বহন করতে তাঁকে কৃষিকাজও করতে হতো। বেচারা ভাগ্যের সহায়তা কোনোদিনই পাননি। তবু তার পরিবারের মধ্যে একটা প্রাণবন্ত পরিবেশ বিরাজ করত। মি: জর্জ অস্টেনের ব্যক্তিগত পাঠাগারটি বেশ সমৃদ্ধ ছিল। ফলে জেন বাড়িতে বইপত্র পড়ার পর্যাপ্ত সুযোগ পেয়েছিলেন। জেন তার সহোদররা অবসর সময় কাটানোর জন্য অপেশাদার নাট্যচর্চাও করতেন। পারিবারিক লাইব্রেরিতে জেন যে সব বই পড়েছিলেন তার মধ্যে স্যামুয়েল রিচার্ডসন, হেনরী ফিল্ডিং এবং ফ্যানি বার্নের উপন্যাসসমূহ, : স্যামুয়েল জনসনের রচনাবলি এবং উইলিয়াম কুপারের রচনাবলি বেশ উল্লেখযোগ্য। জেন অস্টেনের শৈশব কৈশোর সম্বন্ধে বিস্তারিত জানা যায়নি। তিনি এবং তার বোন ক্যাসান্ড্রা কিছুদিন অক্সফোর্ড এবং রিডিং [Reading] এর একাধিক স্কুলে লেখাপড়া করেন। এর মাঝে Reading Abbey Girls' School উল্লেখযোগ্য। আজীবন অধিকাংশ সময় তিনি নিজ পরিবারের সঙ্গে কাটান। ১৮০১ সালে তার পিতা রেভারেন্ড জর্জ অস্টেন অবসর গ্রহণ করেন এবং সপরিবারে বাথ নামক স্থানে বসবাস শুরু করেন। অবশ্য ১৮০৫ সালে পিতার মৃত্যুর পর তাঁরা হ্যাম্পশায়ার অঞ্চলে প্রত্যাবর্তন করেন। প্রথমে সাউথাম্পটন পরে চোটন- বসবাস করেন। অল্প বয়স থেকেই জেন লেখালেখি শুরু করেন। হয়তো তিনি এই ব্যাপারে পরিবার থেকে অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন। পারিবারিক মণ্ডল থেকে তিনি উপন্যাস লেখার অনেক উপকরণ পেলেও তার কিয়দংশ গ্রহণ করেছিলেন। তাঁর পরিবারের বিভিন্ন সদস্য অনেক সম্মানিত ব্যক্তির সাথে যুক্ত ছিলেন এবং বহু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সাক্ষী ছিলেন। কিন্তু তাঁদের অভিজ্ঞতা জেনের রচনায় খুব কমই প্রতিফলিত হয়েছে। সমসাময়িক রাজনৈতিক ঘটনাবলির ছাপ তার রচনায় সুস্পষ্টভাবে পরিলক্ষিত হয় না।
জেন অস্টেন কেন অবিবাহিত থেকে গিয়েছিলেন তার সুস্পষ্ট কারণ জানা যায়নি। তবে তার জীবনেও প্রেমের উদয় হয়েছিল। প্রথম প্রেম ছিল টম লফ্রে [Tom Lefroy] কিন্তু পরে তা স্থায়ী হয়নি। টম নিজেও এই ভালোবাসার কথা স্বীকার করেছেন তবে এটাকে সে বাচ্চাছেলের প্রেম নামে আখ্যায়িত করেন। রেভারেন্ড ব্ল্যাকমলের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে উঠে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ভদ্রলোক তাদের বাগদানের মাত্র কিছুদিন পূর্বে আকস্মিক মৃত্যুবরণ করেন। পরবর্তীকালে হ্যারিস বিগউইদার [Harris Bigg-Wither] নামক এক ভদ্রলোক লেখিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। জেন প্রথমে এই প্রস্তাবে সম্মতি জ্ঞাপন করলেও পরের দিনই নিজ মনের সাথে যুদ্ধ করে অনুধাবন করেন যে তিনি হ্যারিসকে ভালোবাসতে পারবেন না। তাই তিনি তাঁকে নিজ অপারগতার কথা জানিয়ে দেন।
১৮১৬ সালের গোড়ার দিক থেকে জেন অস্টেনের স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে। সুচিকিৎসা পাওয়ার ভগ্নস্বাস্থ্য পুনরুদ্ধারের আশায় তিনি উইনচেস্টার ক্যাথিড্রালের নিকটবর্তী একটা বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। কিন্তু তিনি আর সুস্থ হয়ে উঠতে পারেননি। তখন ধারণা করা হয়েছিল যে তিনি যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত হয়েছেন কিন্তু আধুনিক চিকিৎসকরা রোগটিকে Addison's disease নামে চিহ্নিত করেছেন। ১৮১৭ সালের ১৮ই জুলাই জেন অস্টেন শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তার এপিটাফে লেখা আছে: "The benevolence of her heart, the sweetness of her temper and the extraordinary endowment of her mind obtained the regard of all who knew her and the warmest love of her intimate connections.”
তাঁর বিখ্যাত উপন্যাসগুলো হলঃ
১। Sense and Sensibility (1811)
২। Pride and Prejudice (1813)
৩। Mansfield Park (1814)
৪। Emma (1816)
৫। Northanger Abbey  (1818)
৬। Persuasion (1818)
যদিও এই সব গুলো উপন্যাশই বেনামে লিখেন এবং তাঁর জীবদ্দশাতেই তাকে মোটামুটি জনপ্রিয়তা এনে দেয়।

No comments:

Post a Comment

Blog Archive