Search This Blog

Total Pageviews

Tuesday, November 1, 2016

সাত বোন ও নেকড়ে ( চীনা শিক্ষামুলক লোককাহিনী)



পৃথিবী তে আয়তনের দিক থেকে সবচেয়ে বড় দেশ গুলোর একটি হল চীন। আবার পৃথিবীর সবচেয়ে বেশী লোকের বাশ এই চীন দেশে।তাদের লোক কাহিনী গুলোও খুব সুন্দরর।
অনেক আগের ঘটনা এটি। সব সময়ই আকাশে চাঁদ উঠে। হঠাত একদিন আকাশে চাঁদ উঠে নি। অথচ সে রাতে আকাশ ভরা তারা ঝিকিমিকি করছিল। রাতের খাবার খুজতে সাতটা নেকড়ে বাঘ নিজেদের আকার পালটিয়ে  সাতজন যুবকের রুপ নিয়ে পাহাড়ের নিচে নেমে এলো। কিছু দুরেই এক বাড়িতে থাকতো সাতটি কুমারি মেয়ে। তারা ঘরে বসে সারাদিন সুতা কাটতো।তাদের ঘরের ফুটো দিয়ে,  নেকড়ে বাঘ গুলো সাত বোনকে দেখতে পেলো।ভেতরে ঢুকে মেয়ে কটাকে খেয়ে ফেলার জন্যে  তারা দরজার আঘাত করলো। দরজার ফুটো দিয়ে তারা বাহিরে সাত অচেনা যুবক কে দেখতে পেল। দরজা খোলার মত সাহস তাদের হল না।  দরজা খুলছে না দেখে  নেকড়ে বাঘ গুলো তাদের বলল। আমাদের গরুটা হারিয়ে গিয়েছে। সেটাই খুজতে গিয়েছিলাম। কিন্তু অন্ধকারে আমরা নিজেরাই রাস্তা হারিয়েছি। আমরা কি আপনাদের বাসায় রাতেই এই সময়টা থাকতে পারি?
মেয়েরা বলল,  আমরা এখানে আছি,কিন্তু আমাদের বাবা মা বাহিরে গিয়েছে,  আপনাদে থাকতে দিলে সমস্যা আছে।আপনারা অন্য জায়গায় দেখুন। তখন তারা বলল, ঠিক আছে,  আমরা আপনাদের বাড়ীতে থাকতে চাই না, কিন্তু একটু বিশ্রাম করতে না পাড়লে, আমরা আর একটুও এগোতে পারবো না। দয়া করে আমাদের অন্তত একটু বিশ্রাম করতে দিন।  তাদের মন গলে গেল,  তারা তখন দরজা খুললো। তাদের কে চেয়ারে বসতে দিল। তাদের কে চেয়ারে বসতে দেয়ার সময় বড় বোন খেয়াল করলো, তাদের প্রত্যেকেরই পেছন দিকে একটা করে লেজ গুটানো আছে। সে ভয় পেয়ে গেল আর কাউকে কিছু না বলে পেছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গেল।
তার ঠিক পরের ছোট বোন অর্থাৎ বড়দের মাঝে ২য় সে অতিথিদের কে পা ধোয়ার জন্যে পানি দিল।পানি ঢেলে দেয়ার সময় খেয়াল করলো,  তাদের পায়ে ঘন কালো কালো লোম। সেও  ভয়ে শিউরে উঠলো এবং পেছনের দরজা দিয়ে পালিয়ে গেল।
চার নম্বর বোন অতিথিদের কয়েকটি চালের পিঠা খেতে দিলো।পিঠা দেয়ার  সময় তাদের হাতে সুচোলো নখ দেখতে পেলো। আর যখনি তারা পিঠা নিচ্ছিল, হাতের সুচোলো নখের কারনে পিঠা গুলোয় পাঁচটা করে ফুটো হয়ে যাচ্ছিলো। ভয়ে তার শরীর অবশ হয়ে যাচ্ছিল।তার হাত থেকে পিঠা গুলো,  মাটিতে পড়ে যাচ্ছিলো। তার অবস্থা দেখে নেকড়েরা জিজ্ঞাসা করলো কি হয়েছে।  তার ও খুব পালিয়ে যেতে ইচ্ছে করছিল, কিন্তু ভয়ে তার পা গুলো যেন জমে গিয়েছিল।
কোন উপায় না দেখে সে আগের মতই আবার সুতো কাটতে বসল। বাহিরে তার চালচলন স্বাভাবিক দেখে নেকড়েরা আবার খেতে শুরু করলো। চার নম্বর বোন তার ছোট তিন বোন ক বললো,যারা এসেছে তারা মানুষ নয় নেকড়ে। মানুষ খাওয়া জন্যে তারা মানুষের রুপ ধরে এসেছে। এখনি কিছু একটা না করতে পারলে তারা আমাদের ধরে খেয়ে ফেলবে। ছোট তিন বোন ভয়ে কেদে  ফেলে এমন অবস্থা হল। কিন্তু নেকড়ে গুলোর শুনে ফেলার ভয়ে তারা কাদতেও পারছিলো না।   সবচেয়ে ছোট বোন বলল,  তুমি আমার বড়,  তুমি আমাদের বাচানোর একটা উপায় বের কর।
৬ নম্বর বোন তার ঠিক বড় বোন কে বললো,  তুমি তো আমার বড়,  আমাকে বাচাবার একটা উপায় বের করে দাও না। ৫ নম্বর বোন কিছুক্ষন হতভম্ব হয়ে থেকে তার বড় বোনকে বলল,  তুমি তো আমাদের সবার বড়,  দয়া করে আমাদের বাচাবার একটা উপায় বের করে দাও না। বড় বোন ঠিকই বুঝতে পেরেছিলো ,  এই নেকড়ে বাঘদের কবল থেকে পালানো খুবই কঠিন। সে তখন ছোট তিন বোন কে বলল,  আমাদের বোড় তিন বোন আমাদের আমাদের কে নেকড়ে বাঘের কবলে রেখে পালিয়ে গেল। আমদের নিজেদের কেই একটা বুদ্ধি বের করতে হবে। নাহলে আর বাচতে হবে না। সুতা কাটবার ছলে তারা ফিসফিস করে পরামর্শ  করতে লাগলো। কিছুক্ষনের মাঝেই চড়কার বনবন শব্দ কমে এলো। চার বো মাথা খাটিয়ে  একটা বুদ্ধি বের করল। চার নম্বর বোন দারিয়ে বলল তাদের অনেক ঘুম পেয়েছে। আপনাদের খাওয়া শেষ হত কতক্ষন?  উত্তরে তারা বললো,  বেশি রাত তো হয় নি।  তাছাড়া তোমাদের  বড়  বোনেরা এখোনো ফিরে আসে নি। তোমরা বরং আগুনের কাছে বসো ,  গা গরম হবে।

চতুর্থ বোন বলল,  ঠিক আছে,  আমরা একটু আগুন পুইয়ে নিই,  গা  গরম হবে। আগুনের কাছে গিয়ে সে বলল, আগুন টা কমে গিয়েছে,  আমি বরং উপর থেকে কিছু লাকড়ি নিয়ে আসি।
নেকড়ে বাঘ গুলো তাকে কোন সন্দেহ করলো না। চতুর্থ বোন উপরে উঠল,  লাকড়ি আনার ছুতোয়। কিছুক্ষন পরে উপর থেকে তার গলার আওয়াজ ভেসে আসল, সে ছোট তিন বোন কে ডাকছিলো আমি এতো কাঠ উপর থেকে নামাতে পারছিনা।  তোমরা তিনজন আমাকে একটু সাহায্য করবে। ছোট তিন বোন উপরে চলে গেলো। নিচে নেকড়ে রা অপেক্ষা করছিলো।  অনেক্ষন হয়ে গেল,  কিন্তু তাদের উপর থেকে কাঠ নিয়ে ফেরার  নাম নেই। শেষে তাদের আর ধৈর্য হল না,  বড় নেকড়ে টি উপরে গেল,  কি হয়েছে দেখার জন্যে।  কিন্তু অনেক ক্ষন হয়ে গেল তার আর ফেরার নাম নেই।এর পর এক জন একজন করে আরো দুই নেকড়ে উপরে গেলো,  কিন্তু কারোই আর ফেরার খবর নেই। বাকি নেকড়ে গুলো তখন  আস্তে আস্তে লাইন ধরে সিড়ি দিয়ে উপরে উঠতে লাগলো। কিন্তু সিড়ি যেখানে শেষ হয়েছে চার বোন সেখানে অপেক্ষা করছিলো। সিড়ি বেয়ে প্রথম নেকড়েটি উপরে মাথা ঢোকাতেই দেখলো চার বোন সেখানে লাঠি নিয়ে অপেক্ষা করছে।  চার বোন ই তাকে গায়ের সকল জোড় এক করে দিলো বাড়ি,  আর সে সাথে সাথেই সে উলটিয়ে পড়লো বাকি নেকড়ে দের নিয়ে নিচে ফায়ারপ্লেস এর উপর। ভয়ে নেকড়ে গুলো দৌড়ে বেরিয়ে গেল বাড়ি থেকে। এই সুযোগে মেয়েরা ঘরের খিল এটে দিলো।নেকড়েরা বুঝতে পারলো,  এই মেয়ে গুলো বড় তিন নেকড়েকে খতম করেছে। রাগে তারা তাদের আসল রুপ ধারন করলো। থাবা মেরে দরজা ভাংগার চেষ্ঠা করলো। কিন্তু প্রচন্ড মজবুত দরজা তারা ভাংতে পারলো না।  শেষে তারা ভাবল পিছনের দরজা ভাংগা যায় কিনা।  কিন্তু পিছনের দরজাও শক্তভাবে বন্ধ।
পিছনের দরজার কাছে এক নেকড়ে একটি পিপে দেখতে পেলো। পিপের ঢাকনাটা ঠিক মতো লাগেনি। সে উকি মারতেই একটি দুল পড়া কান দেখতে পেলো। সাথে সাথেই সে এক কামড়ে দুল পড়া কানটাই ছিড়ে নিল।  ওদিকে আর এক নেকড়ে একটা পা দেতে পেল গাছ থেকে ঝুলছে। সে নিচে থেকে লাফ দিয়ে তার পায়ের একটা আংগুল কেটে নিল।  আর এক নেকড়ে পিছনে ঘুরতে ঘুরতে একটি ঝোপের ভিতর থেকে কিছু একটা বেরিয়ে থাকতে দেখলো।অমনি ঝাপিয়ে পড়ে সে এক কামড় দিলো।সেখানে আসলে ছিল তাদের আর এক পালিয়ে যাওয়া বোন।  নেকড়েটি কামড়ে তার পশ্চাতদেশ এর মাংছিড়ে নিয়েছিলো।যাতে করে সে দীর্ঘ দিন আর কোথাও বসতে পারবে না।

স্বার্থপর দের আল্লাহ এভাবেই শাস্তি দেন। বড় বোন,  মেঝো বোন আর সেঝো বোন তাদের স্বার্থপরতার জন্যেই ক্ষতিগ্রস্থ হল। আর ছোট চার বোন সাহসি ভাবে পরিস্থিতির মোকাবেলা করে বেচে গেলো।
Protected by Copyscape

No comments:

Post a Comment

Popular Posts