Saturday, January 26, 2019

Easter 1916 - William Butler Yeats - Bangla translation

Easter 1916 - William Butler Yeats -  Bangla translation



সম্মান ৪র্থ বর্ষের অন্যান্য অনুবাদ ও লেখা

Easter 1916 - William Butler Yeats -  Bangla translation

ইস্টার ১৯১৬ কবিতার সারাংশ, আলোচনা ও টিকাসমূহ 


বঙ্গানুবাদ 
ইস্টার ১৯১৬
উইলিয়াম বাটলার ইয়েটস 
দিনের শেষের দেখা হল তাদের সাথে
এসেছিল তারা উজ্জ্বল মুখাবয়ব নিয়ে,
টেবিল অথবা কাউন্টার থেকে, বা ধুসর 
আঠারো শতকের পুরোনো বাড়ি থেকে।
মাথা ঝুকিয়ে তাদের পার হয়ে গিয়েছি।
অথবা ভদ্রগোছের কিছু  অর্থহীন কথা বলে গিয়েছি
অথবা কিছুক্ষণ থেমে ছিলাম আর বলেছি
একেবারে প্রয়োজনহীন,
মনে পড়ে বলতাম তাদের
কত হাসির গল্প, রাঙিয়ে রসে
আমোদিত করতে সব সাথিদের
ক্লাবের আন্ডায় মেতে থাকতাম, যখন আগুনের চারপাশে
ওরা আর আমি নিশ্চিত জানতাম টা,
তবু বাচতাম, পরে সংয়ের সাজ
কিন্তু আমূল বদলে গেছে সব যে
এক ভীতিকর সুন্দরের জন্ম হলো আজ।

সেই মহিলার দিনগুলো বৃথাই অতিক্রান্ত
সব অজ্ঞ প্রতিজ্ঞায়,
রাতভর করে যেত তর্ক সব ভ্রান্ত
যতক্ষণ না কণ্ঠ ভরে উঠত তীক্ষ্মতায়।
স্বর ছিল তার কী মিষ্টি সুরেলা
যৌবনে রূপ ছিল ফুটন্ত ফুল
শিকারি কুকুরের পিছু ছুটত একলা
এই লোকটা খুলেছিল একটা স্কুল
এবং ছিল আমাদের কাব্য সাথি।
আরেকজন তার সাথি, বন্ধু তার
পূর্ণোদ্যমে হয়েছিল সারথি
হয়তো পেত সুনাম অপার,
সুতীক্ষ চেতনা ছিল তার স্বভাবে
দুঃসাহসী মধুর চিন্তায় ছিল সহজ অধিকার।


আরেকজন, যাকে দেখতাম স্বর্গ প্রভাবে
বদ্ধ মাতাল ছিল, ছিল বৃথা অহঙ্কার
অন্যায় করেছে সে যারপরনাই
অনেকের সাথে, যারা ছিল আমার প্রিয়জন।
তবুও আমার গানে তারে দিই ঠাই;
সেও, নিষ্ক্রীয় এখন
সব ভাঁড়ামির খেলায়
সেও বদলেছে
ক্ষান্ত দিয়েছে সংয়ের পালায়
বদলেছে সে সম্পূর্ণ
ভীতিকর সুন্দরের জন্ম যখন আসন্ন।

সব হৃদয় একই অভিষ্ট-কাতর
গ্রীষ্ম কিংবা শীতে
মোহিত করে তাদের একই পাথর
বাধাগ্রস্ত করে জীবন স্রোতে
ধাবমান অশ্বটি পথে,
তার সওয়ার, উড়ন্ত পাখিরা সব
মেঘ থেকে মেঘে
প্রতি পলে, সব দৃশ্যে বদলের উৎসব
সরোবরে মেঘের ছায়াটি
প্রতি পলে বদলায়;
তীর থেকে পিছলে ঘোড়াটি
সশব্দে জলে পড়ে যায়;
দীঘল পায়ের পানকৌড়ি জলে ডুব দেয়।
সাথিকে ডাকে উঁচু রবে তার
প্রতি মুহুর্ত সব বদলে দেয়
সেই পাথরটিই ভেতরে সবার।
অনেক উৎসর্গে হলে উজ্জ্বল
এক পাথরও প্রাণ পেতে পারে
কিন্তু তার তরে প্রতীক্ষা কতকাল?
ঈশ্বরই জানেন তা, আমরা কর্তব্য যাব করে
একের পরে এক
জননী যেমন তার সন্তানে
দিয়ে যায় ডাক
শায়িত যখন সে গভীর শয়নে।
আঁধার নামা রাত ছাড়া আর কী তবে?
না, না, এত রাত নয় মৃত্যু;
এসব মৃত্যু কি বৃথাই যাবে?
ইংল্যান্ড তো ভেবে নেবে তাই সত্য
যা কিছু করা বা বলা হয়।
ওদের স্বপ্ন সব তো জানা আমাদের
অনেক স্বপ্ন দেখে তারা মৃত্যুতে পেল জয়
গভীর ভালোবাসা ছিল তাদের
সে ভালোবাসায় বিমোহিত ছিল কি আমরণ?
কবিতায় রেখে যাই তাদের
ম্যাক ডোনাগ, ম্যাক ব্রাইডকে করতে স্মরণ
এবং কোনোলী আর পিয়ার্স
এখন অথবা তখন
যেখানেই সবুজ তারুণ্যের ক্ষয়
বদলেছে, স্পষ্টতই সব বদলেছে,

একটি ভীতিকর সৌন্দর্যের জন্ম হয়। 
Reactions:

0 comments:

Post a Comment

Popular Posts