Sunday, September 9, 2018

Death of a Salesman by Arthur Millar - Bangla summary and characters - ডেথ অফ আ সেলসম্যান বাংলা সারাংশ ও চরিত্রসমূহ - ২য় অঙ্ক



death of a salesman by arthur millar - bangla summary and  characters~1



Death of a Salesman by Arthur Millar - Bangla summary and  characters - ডেথ অফ আ সেলসম্যান বাংলা সারাংশ ও চরিত্রসমূহ - ২য় অঙ্ক 

২য় অঙ্ক শুরু 

লিন্ডার হাতে তৈরী সকালের নাস্তা উইলি বেশ উপভোগ করছিল। উইলি তাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ নিয়ে ভাবছিল। দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ায় সে একবার রেগে গেল। লিন্ডা তাকে জানালো বিফ আর হ্যাপি তাকে রাতের খাবার খেতে বাহিরে নিয়ে যাবে। আনন্দে উত্তেজিত অবস্থায় সে বলল তাকে যাতে নিউইয়র্কে কাজ দেয়া হয় সে ব্যাপারে কথা বলতে যাবে। টেলিফোনটি বেজে উঠল, এসময় উইলির সাথে কিরুপ আচড়ন করা দরকার এ ব্যাপারে বিফের সাথে লিন্ডা কথা বলছিল।
যেখানে হাওয়ার্ড একটি তারের রেকর্ডারে কোন কিছু বাজাচ্ছিল। উইলি নিউ ইয়র্কে তার কাজের ব্যাপারটা উত্থাপন করতে চাচ্ছিল। কিন্তু হাওয়ার্ড তাকে তার স্ত্রী এবং সন্তানের কন্ঠ শুনতে বাধ্য করল। অবশেষে উইলি যখন কিছুটা বলার সুযোগ পেল তখন হাওয়ার্ড তার আবেদন প্রত্যাখ্যান করল। উইলি তখন ডেভ সিঙ্গেলম্যানের কথা স্মরণ করল যাকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে সে এই কাজে এসেছিল। হাওয়ার্ড বেরিয়ে যায়। এতে উইলি খুব রেগে গেল। কিছুক্ষন পরে হাওয়ার্ড আবার এলো আর তাকে কিছু সময় অব্যাহতি নিতে বলল। উইলি আবার কল্পনার জগতে হারিয়ে গেল। হাওয়ার্ড চলে গেলে বেন প্রবেশ করল আর উইলিকে আলাস্কায় আসার আমন্ত্রন করল। এ সময় কমবয়েসি লিন্ডা প্রবেশ করল আর তাকে তার সন্তান ও চাকরির কথা মনে করিয়ে দিল। এ সময় অল্প বয়েসি বিফ প্রবেশ করল আর সে তার অবস্থার প্রশংসা করল।
তার কল্পনার মাঝ থেকে বেন চলে গেল আর বার্নার্ড প্রবেশ করল এবং বিফের ফুটবল খেলার জন্যে অপেক্ষা করল। উইলি খেলা নিয়ে বিফের সাথে কথা বলল। এ পর্যায়ে চার্লি এলো আর খেলা নিয়ে উইলিকে খেপিয়ে তুলল। উইলি চার্লির পিছন পিছন দৌড়ে গেল। এ পর্যায়ে স্টেজ এর আলো উইলি থেকে সরে যায়। উইলি স্টেজ এর বাহিরে চিৎকার চেঁচামেচি করতে থাকে। আলোতে দেখা যায় চার্লির সেক্রেটারি জেনি অল্প বয়েসি বার্নার্ডকে শান্ত হতে আহবান জানায়। এবার দৃশ্যে উইলি প্রবেশ করে আর বিফ যা নিয়ে কাজ করছে সে ব্যাপারে কথা বলে। বার্নার্ড তাকে বলল সে একটি মামলা লড়ার জন্যে সে ওয়াশিংটন যাচ্ছে। তাকে সে জিজ্ঞাসা করল বিফ কেন এভাবে ব্যর্থ হল। উত্তরে বার্নার্ড তার কাছে জানতে চাইলো কি এমন ঘটেছিল বোস্টনে যে   বিফ গ্রীষ্মকালীন স্কুলে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। উইলি তাকে বলল বিফকে দোষ না দিতে।
এবার দৃশ্যে চার্লি প্রবেশ করল আরা বার্নার্ডকে বিদায় করে দিল। উইলি তার কাছে আগেও ধার চেয়েছিল তখন চার্লি তাকে ধার দিত কিন্তু এবার চার্লি তাকে ধার না দিয়ে তাকে কাজের প্রস্তাব দেয়। উইলি তার প্রস্তাব নাকচ করে দেয় আর তাকে জানায় তার চাকরি চলে গিয়েছে। সে বার বার ধার চায় বলে চার্লি তাকে তিরষ্কার করল তারপর রাগান্বিতভাবেই তাকে টাকা ধার দিল। চার্লিকে তার একমাত্র বন্ধু পরিচয় দিয়ে চোখের পানি পড়ো পড়ো অবস্থায় উইলি বেরিয়ে গেল।
হ্যাপি ফ্রাঙ্কস চপ হাউজে স্ট্যানলি নামক একজন খাবার পরিবেশনকারীকে সাহায্য করত। মিস ফরসিথ নামক একজন পতিতা সেখানে প্রবেশ করলে তারা তার প্রতি চোখ টিপে। এ সময় সেখানে বিফ প্রবেশ করে আর তারা মিস ফরসিথ এর সাথে তাকে পরিচয় করিয়ে দেয়। সে অন্য একজন পতিতার সাথে কথা বলবে বলে সেখান থেকে বের হয়ে যায়। এবার বিফ হ্যাপিকে খারাপ সংবাদ দিল। বিফ বিল অলিভারের সাথে দেখা করার জন্যে ছয় ঘন্টা অপেক্ষা করেছিল আর তাদের দেখা হওয়ার পর বিল অলিভার তাকে চিনতেই পারেনি। এ সময় দৃশ্যে উইলি প্রবেশ করে আর বিল অলিভারের অফিসে কি ঘটেছিল বিফ তা বেশ নম্রভাবে তার কাছে বর্ণনা করে। এ সময় ঝোকের মাথায় উইলি তাকে বলে দেয় সেও তার চাকরিচ্যুত হয়েছে। স্তব্ধ অবস্থায় বিফ উইলিকে শান্ত করার চেষ্টা করল। হ্যাপি বিফের সাফল্য নিয়ে মাঝখানে ফোড়ন কাটল। উইলি তখন কোন ভাল খবরের অপেক্ষা করল। উইলি শুনতে অনিচ্ছুক হওয়ার কারনে বিফ তার প্রতি রাগে ফেটে পড়ল। এ সময় দৃশ্যে অল্পবয়সি বার্নার্ডকে দেখা গেল লিন্ডাকে ডেকে দৌড়ে আসতে। বিফ, হ্যাপি আর উইলি পিছনে তাদের তর্ক বিতর্ক চালিয়ে গেল। বার্নার্ড তাকে বলল বিফ গণিত পরীক্ষায় ফেল করেছে। তাদের তিনজনের কথা শোনা যায়। হ্যাপি আর উইলি গণিত পরীক্ষায় অকৃতকার্য হবার বিষয়ে বিফকে খোটা দেয়।  উইলি তখন বোস্টনে হোটেল অপারেটরের কন্ঠ শুনতে পায় আর চিৎকার করে ওঠে যে আসলে সে তার কক্ষে এখন আর নেই। বিফ উইলিকে থামায় আর দাবি করে যে অলিভার এখন তার অফিসে তার অংশীদারের সাথে বিফকে টাকা দেয়ার ব্যাপারে আলোচনা করছে। উইলির নয়া আগ্রহ আর অনুসন্ধানী প্রশ্ন বিফের বিরক্তির উদ্রেক করে তাই সে উইলির দিকে তাকিয়ে চিৎকার করে ওঠে। উইলি সেই মহিলার হাসির আওয়াজ শুনতে পায়। উত্তরে সে বিফের দিকে চিৎকার করে ওঠে এবং তাকে আঘাত করে।মিস ফরসিথ তখন লেটা নামক আর একজন পতীতাকে নিয়ে সেখানে প্রবেশ করে। বিফ উইলিকে ওয়াশরুমে নিয়ে গেলো আর ফিরে এসে দেখে সে ঐ মেয়েদের সাথে ছিনালী করে বেড়াচ্ছে। সে তার সাথে উইলির ব্যাপারে তর্ক করল।
উইলি এবং সেই মহিলা প্রবেশ করলো এবং তারা ছিনালী করে শুরু করল। দরজায় টোকা পড়লে উইলি তাকে গোসলখানায় প্রবেশ করালো। উইলি দরজা খুলে দেখে অল্পবয়সি বিফ এসেছে আর সে তাকে তার গণিতে অকৃতকার্য হবার খবর দেয়। উইলি তাকে কক্ষ থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করে কিন্তু সে তাকে তার গণিত শিক্ষকের কন্ঠ নকল করে শোনায়। যাতে উইলি এবং সেই মহিলা দু জনেই হেসে ওঠে। উইলি তার হঠকারীতা ঢাকার চেষ্টা করে কিন্তু বিফ তার গল্প প্রত্যাখ্যান করে। এ সময় উইলিকে সে প্রতারক বলে সম্বোধন করে। স্ট্যানলি উইলিকে সোজা হয়ে দাড়াতে সাহায্য করল। সে তাকে বীজের দোকান কোথায় পাবে জিজ্ঞাসা করল। স্ট্যানলি তাকে একজনের রাস্তা দেখিয়ে দিল আর উইলি সেদিকে ছুটে চলল।

উইলি লোম্যানের রান্নাঘরের দৃশ্যে আলো জ্বলে উঠল। হ্যাপি উইলিকে খুজতে খুজতে সেখানে প্রবেশ করল। এরপরে বসার ঘরে গেলে তার সাথে লিন্ডার দেখা হল। বিফও ঘরে প্রবেশ করলে লিন্ডা তাদেরকে তিরষ্কার করল এবং হ্যাপির হাতের ফুলগুলো দূরে সরিয়ে রাখল। উইলিকে একা রেখে যাওয়ার কারনে তাদের সাথে চিৎকার চেঁচামেচি করল। হ্যাপি তাকে শান্ত করার চেষ্টা করল আর বিফ উইলিকে খুজে বের করার জন্যে বেরিয়ে গেল। সে উইলিকে বাগানে ফ্ল্যাশলাইট ব্যবহার করে বীজ রোপনরত অবস্থায় দেখল। বিফ তাকে ঘরের ভিতর নেয়ার চেষ্টা করল। উইলি বিফের পিছু পিছু ঘরে ঢুকল এবং সে বার বার বিফের অকৃতকার্যতার জন্যে রেগে যাচ্ছিল। হ্যাপি এবার বিফকে ঠান্ডা করার চেষ্টা করছিল। বিফ ও উইলি একে অপরের উপর ফুসে উঠছিল বার বার। বিফ এক পর্যায়ে ফুপিয়ে কান্না শুরু করল যা উইলির হৃদয়ে স্পর্শ করল। উইলি ছাড়া সকলেই বিছানায় গেল। সে বেন এর সাথে কথোপকথন শুরু করল। আলোচনার বিষয় ছিল ইন্সুরেন্স থেকে বিশ হাজার ডলার পেলে বিফ কত বড় হতে পারে। লিন্ডা উইলিকে ডাকলো কিন্তু কোন সাড়া পেল না। বিফ এবং হ্যাপি স্পষ্টই শুনছিল তাদের গাড়ির বের হওয়ার শব্দ।
উইলির অন্তেষ্টিক্রিয়ায় হ্যাপি এবং বিফ বিমূড় হয়ে দাড়িয়েছিল। বিফ বলল উইলি আসলে ভুল স্বপ্ন দেখেছে। চার্লি বিফ এর কথার প্রতিবাদে বলল আসলে সে তার চাকুরির বলি হয়েছে। চলে যেতে উদ্দত বিফ তার ভাই হ্যাপিকে পশ্চিমের বাহিরে কোথাও যেতে আমন্ত্রন জানালো। হ্যাপি তাকে বলল উইলির মৃত্যুকে মূল্যায়ন করতেই সে নিউ ইয়র্কের বাহিরে কোথাও যেতে চায়। কান্না না আসায় লিন্ডা উইলির কাছে ক্ষমা চাইলো। আমরা আজ মুক্ত এই কথা বলে সে ফোপাতে লাগল। সকলেই চলে গেল আর বাঁশির সুর বেজে উঠল।


পর্দার অবনমন। 

Reactions:

0 comments:

Post a Comment

Popular Posts